লুমিয়াটা কিনেছি বেশ কয়েক সপ্তাহ হল ! ভাবলাম আগে কয়েকদিন ভাল করে ইউজ করি; তাহলে বিস্তারিতভাবে রিভিউ লিখতে পারব। অবশ্যি সময়ও পাচ্ছিলাম না রিভিউ টিউন করার   😛

যাহোক লুমিয়া কেনার কোন প্লান ছিল না ! অ্যান্ড্রয়েডটা হুট করে বিক্রি করে দিলাম। অ্যান্ড্রয়েডে মজা পাইনি বা ভাল লাগে নাই এরকম কোন কারণে নয়। অ্যান্ড্রয়েড অবশ্যই সবার সেরা এবং বস একটা মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম। তো অ্যান্ড্রয়েড বিক্রির পর ভেবেছিলাম একটা iPhone নেই। অবশ্যই সেকেন্ডহ্যান্ড ! আইফোন 4, 4s এর সেকেন্ডহ্যান্ড এখন অনেক কম দামে বিক্রয়.কম এবং সেলবাজারে পাওয়া যাচ্ছে। সেজন্যই এই ভূত মাথায় চড়েছিল। আমি আবার কোন সৌখিন বা দামী (!) জিনিস কেনার ক্ষেত্রে গণতান্ত্রিক সিম্টেম ফলো করি; তাই পরামর্শের জন্য ফেইসবুকে একটা স্ট্যাটাসও দিয়ে দিলাম। আইফোন নাকি উইনডোজ ফোন এই নিয়ে জাতির তুমুল ভোটাভুটি। 😀

আইফোন নেয়া উচিত এরকম মন্তব্যই বেশি। তবে কয়েকটা বিপক্ষে মন্তব্যও এসেছে এবং অবশ্যই সেগুলি যুক্তিসংগত। উইনডোজ ফোন নিয়েও মন্তব্য এসেছে। বলার আর জো নেই যে নোকিয়া লুমিয়া মানেই উইনডোজ ফোন। অনেকজনই লুমিয়াও ট্রাই করতে বলল। আমিও চিন্তা করলাম আবহাওয়া সম্পূর্ণ পরিবর্তন করা দরকার। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম নোকিয়া লুমিয়া অর্থাৎ উইনডোজ ফোন নিব। আমার মেইন গোল যেতেহু অভিজ্ঞতা কামানো তাই এটা সবচেয়ে বেশি ভাল হবে। যেই ভাবনা সেই কাজ। কয়েকদিন লুমিয়া ফোনগুলির কনফিগারেশন, পারফামেন্স এবং ফিচার ইত্যাদির উপর গুগলে চিরুনী অভিযান চালানো হল। এবং শেষ পর্যন্ত নোকিয়া লুমিয়া ৬২৫ টাই সাধ্যের মধ্যে বেশ ভাল মনে হল। নিয়ে নিলাম ওটাই।

NOKIA LUMIA 625
Bigger. Better. Faster.

ইমেজ ক্রেডিটঃ নোকিয়া

ফিচার ও বিস্তারিত রিভিউ

প্রথমেই বলব নোকিয়া লুমিয়া ৬২৫ একটি মিড বাজেটের ফোন। এর বর্তমান দাম ধরা হয়েছে ২২,৫০০ টাকা। অর্থাৎ এটি পুরোপুরি বাজেট ফোনও নয় আবার বেশীদামী ফোনও নয়। দুইটার মাঝামাঝি বলা যেতে পারে। ফোনটিতে মূলত আগের হাই-এন্ড নোকিয়া লুমিয়া ৮২০, ৯২০ এবং ১০২০ এর নরমাল ফিচারগুলি অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। আর সবচেয়ে আকর্ষণীয় ফিচারটি হল এটি 4G সাপোর্টেট ফোন। এই বাজেটের মধ্যে সাধারণত 4G সেট পাওয়া যায়না। আমাদের দেশে ইতিমধ্যেই 3.9G দিয়ে দিয়েছে ! আশাকরি সামনে বছরেই আমরা 4G LTE পেয়ে যাব। 🙂

ডিসপ্লেঃ

লুমিয়া ৬২৫ এর সবচেয়ে আকর্ষনীয় হল এটিতে রয়েছে ৪.৭ ইঞ্চি ডিসপ্লে। যেটি লুমিয়া সিরিজগুলির মধ্যে সবচেয়ে বড়। তাই যাদের বড় ডিসপ্লে ব্যবহার করে অভ্যাস তারা বেশ কমফোর্ট ই ফিল করবেন। তবে বাজে দিকটি হল ডিসপ্লে সাইজ বড় হলেও এটির রেজুলেশন ৪৮০ x ৮০০ পিক্সেল। যা এত বড় একটি ডিসপ্লের জন্য একটু কমই বটে। তাছাড়া এটির Pixel Density 199 ppi যা অনেক কম। অবশ্যি আপনার বেশিদামী ফোন ব্যবহারের অভ্যাস না থাকলে পার্থক্য ততটা বুঝতে পারবেন না। যাহোক বড় ডিসপ্লে হওয়ায় ফোনটিতে ভিডিও, গেমিং এবং ইন্টারনেট ব্রাউজিং করে অনেক মজা পাবেন। তবে ডিসপ্লে বড় হলেও ফোনটি মোটেও অনেক বড় মনে হয়না। অর্থাৎ ফোনটা ঠিক পাতলাও নয় আবার স্লিমও নয় কিন্তু মোটা মনেহয়না। স্লিম গঠন এবং রাউন্ডেড কর্ণার এর জন্য অনায়াসে প্যান্টের পকেটে রাখতে পারবেন 🙂

লুমিয়া সিরিজের সবচেয়ে বড় ডিসপ্লেযুক্ত ফোন লুমিয়া ৬২৫
ইমেজ ক্রেডিটঃ নোকিয়া

আর দুটি দারুন ব্যাপার হল এটির IPS LCD ডিসপ্লের সাথে Gorilla Glass 2 ব্যবহার করা হয়েছে। এর ফলে ডিসপ্লেতে কোন দাগ পড়ার সুযোগ নাই এবং স্ক্রিন প্রটেকশন ব্যবহারের প্রয়োজন নেই। আমি গরিলা গ্লাস যুক্ত ফোন এর আগে ব্যবহার করিনি। এই প্রথম। আমি সুই এবং নখ দিয়ে ডিসপ্লেতে দাগ ফেলানোর চেষ্টা করেছিলাম। 😉  কিন্তু একটুও দাগ পড়েনি এবং কোন ক্ষতি হয়নি। সত্যিই দারুন ব্যাপার একটা।

লুমিয়া ৬২৫ এর আরেকটি দারুন ব্যপার হল এটিতে ব্যবহার করা হয়েছে Super Sensitive Touch Technology. যার ফলে আপনি ঠান্ডার সময় হাতে গ্লোবস পরেও ফোনটি ব্যবহার করতে পারবেন এবং আপনার আঙ্গুলের প্যাড এর পাশাপাশি নখের সাহায্যেও টাচ করতে পারবেন। সামনে ঠান্ডা আসতেছে তাই এই সুবিধাটা আমার দারুন কাজে আসবে 🙂

গঠনঃ

নোকিয়া সাধারণত লুমিয়া তৈরীর প্রথম থেকেই কালারফুল ফোন তৈরী করছে। আর তারই ধারাবাহিকতায় লুমিয়া ৬২৫ ও পাবেন লাল-কমলা, হলুদ, সবুজ, কালো এবং সাদা কালারে। আমি নিয়েছি কালোটা। কালোটাও জোস ! অন্য কালার পাইনি। 🙁 লালচে কমলা কালারটা অনেক সুন্দর লাগে দেখতে।  তবে ফোনটির ব্যাক কভারটির গঠন দারুন। অনেক সুন্দর দেখা যায়, স্মুথ এবং সহজে স্লিপও করবে না। ব্যাক কভারটি বাকানো হওয়ায় ধরতে অনেক সুবিধা হয়।

ব্যাক কভারটি খোলা যায় তবে এর ব্যাটারি খুলতে পারবেন না। ব্যাটারিটি আলাদা কিন্তু উপরে সেপারেটর সহ স্ক্রু দিয়ে আটকানো আছে। শুধু মাইক্রো সিম কার্ড এবং মাইক্রোড SD কার্ড লাগাতে পারবেন।

আমার কাছে আলাদা ভাল ক্যামেরা নাই তাই নিজের ফোনের ছবি তুলি নাই। লালচে-কমলাটাই দিলাম।
ফটো ক্রেডিটঃ জোস মিলার/সিনেট

ফোনটির পুরো ফিটিংটা অনেক সুন্দর এবং আকর্ষনীয়। ফোনটি অনেক শক্তপোক্তও মনে হয়েছে অর্থাৎ পড়ে গেলে ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যাওয়া সম্ভাবনা অনেক কম।

অপারেটিং সিস্টেম এবং ফিচারঃ

লুমিয়া ৬২৫ এ অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে দেয়া হয়েছে উইনডোজ ফোন ৮ এবং মাইক্রোসফট এর সর্বশেষ রিলিজ করা Amber আপডেটও দেয়া হয়েছে ফোনটিতে। তাই আগের ফোনগুলির তুলনায় এটিতে বেশ কয়েকটি নতুন ফিচার এবং বিভিন্ন বিষয় ফিক্স করা হয়েছে। তবে ফোনটিতে Compass নাই। 🙁 ফলে কোন কমপাস অ্যাপ ফোনটিতে কাজ করবে না এবং ম্যাপ ব্যবহারেও সামান্য অসুবিধা হবে। যদিও কমপাস এবং ম্যাপ খুব কম কাজেই লাগে।

লুমিয়া ৬২৫ এ কিন্তু সুন্দর বাংলা সাপোর্ট করে। অনেকেই জানতে চেয়েছিলেন উইনডোজ ফোনে বাংলা সাপোর্ট করে কিনা। বর্তমানে Windows Phone 8 সমৃদ্ধ সকল ফোনে বাংলা সাপোর্ট রয়েছে। তবে Windows Phone 7 কিংবা 7.5 এগুলিতে বাংলা সাপোর্ট নেই।

লুমিয়া ৬২৫ থেকে তোলা টেকটিউনস এর স্ক্রিনশর্ট

ফোনটিতে WiFi, GPS এর পাশাপাশি দেয়া আছে Bluetooth 4.0 ! যা বর্তমানে ব্লুটুথ এর সর্বশেষ ভার্সন এবং অনেক ফার্স্ট। ফলে অন্যান্য 4.0 বা 3.0 ভার্সনের ব্লুটুথ সুবিধার ফোনগুলিতে অনেক দ্রুত গান/ফটো/ভিডিও ইত্যাদি সেয়ার করতে পারবেন।

আরকটা দারুন সুবিধা হল Flip to silence ! অর্থাৎ কোন কল এলে ফোন সাইলেন্ট করার জন্য কোন বাটন টিপতে হবেনা। আপনি ফোনটি উপুড় করলেই সাইলেন্ট হয়ে যাবে। যদিও সুবিধাটি সাধারণ ব্যবহারকারীদের তেমন কাজে আসলে বলে মনে হয়না। তবে ব্যবসায়ী অফিসিয়াল মানুষদের জন্য দরকারী একটি ফিচার।

মিউজিক এবং অডিওঃ

ফোনটির সাউন্ড কোয়ালিটি অনেক সুন্দর। এবং মজার ব্যাপার হল এতে রয়েছে Dolby Digital Sound System ! তবে এটা শুধু হেডফোন দিয়ে শোনার সময় কাজ করবে। ফোনটির সাথে অরিজিনাল যে হেডফোনটি দিয়েছে সেটি দেখতে অনেক সুন্দর হলেও সাউন্ড আমার কাছে বাজে মনে হয়েছে। তবে অন্যান্য হেডফোন এবং হেডসেটে দারুন সাউন্ড হয়।

ইমেজ ক্রেডিটঃ নোকিয়া

এছাড়াও নোকিয়া লুমিয়ার আর ফোনগুলির মত এটিতেও রয়েছে FM Radio। যা অন্যান্য ফোনগুলি যেমন আইফোন কিংবা অ্যান্ড্রয়েট এ প্রায় বিলুপ্তই বলা যায়।

ক্যামেরা এবং ভিডিওঃ

ফোনটির পিছনের ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল এবং সামনে ০.৩ মেগাপিক্সেল। LED ফ্লাসও রয়েছে। নোকিয়া আগে থেকেই ক্যামেরার দিক দিয়ে বিখ্যাত হলেও লুমিয়া ৬২৫ এর ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ছবি আমার খুব একটা ভাল লাগেনি। ছবি মোটামুটি ভালই আসে তবে যেরকম আশা করেছিলাম সেরকম মোটেও নয়। ছবি খুব ক্লিয়ার নয় এবং একটি ধূসর ভাব থাকে। ক্যামেরা ৮ মেগাপিক্সেল দেয়া উচিত ছিল। তবে বাজেট হিসেবে ৫ মেগাপিক্সেল অবশ্যি খুব একটা খারাপ নয়।

লুমিয়া ৬২৫ এ তোলা ছবি (বড় করে দেখতে ছবিটিতে ক্লিক করুন)

লুমিয়ার আরেকটি অসাধারণ অ্যাপ হল Nokia Smart Cam ! এটি দিয়ে সেকেন্ডে অনেকগুলি ছবি তোলে (সম্ভবত ১০টা) এবং Best Shot টি নির্বাচন করে। এছাড়াও Remove Moving Object সহ আরো ৪টি Shot পাবেন। বাচ্চাকাচ্চাদের ছবি তুলতে এই অ্যাপটি দারুন কাজে আসে। 🙂

ইমেজ ক্রেডিটঃ নোকিয়া

লুমিয়া ৬২৫ এ 720p HD এবং 1080p Full HD তে ভিডিও 30 Frame Per Second রেকর্ড করা যায়। আর সামনের ক্যামেরা দিয়ে 480p এ ভিডিও রেকর্ড হয়। ক্যামেরার ছবির থেকে ভিডিও অনেক ভাল হয়। অনেক ক্লিয়ার এবং ভিডিওর সময় অটোফোকাস দারুনভাবে কাজ করে। ভিডিও অনেক হাই কোয়ালিটিতে রেকর্ড হওয়ায় ১ মিনিটের ভিডিও প্রায় ৯০ মেগাবাইট এর মত জায়গা নেয় 😛 তাই বড় কোন ভিডিও রেকর্ড করার ইচ্ছা থাকলে অবশ্যই বড় সাইজের মেমোরী কার্ড লাগাতে হবে।

পারফামেন্সঃ

ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে Qualcomm Snapdragon S4 dual-core 1.2Ghz processor এবং 512MB RAM, মিড বাজেট ফোন হিসেবে এটি মোটেও খারাপ বলা যাবেনা। অ্যাপ, গেম ইত্যাদি বেশ ভাল এবং স্মুথলিই চলে।

এবং 1080p Full-HD এর ভিডিওগুলিও খুবই স্মুথভাবে চলে।

ইমেজ ক্রেডিটঃ নোকিয়া

ফোনটির ইন্টারনাল মেমোরী ৮ জিবি। ৪.৫ গিগাবাইট এর মত ব্যবহারযোগ্য। তবে টেনশনের কারণ নেই কারণ আপনি ৬৪ গিগাবাইট পর্যন্ত মেমোরীকার্ড লাগাতে পারবেন। এছাড়াও ফোনের সাথে ৭ জিবি ফ্রি স্পেস পাবেন SkyDrive এ।

এবার আসা যাক ব্যাটারি লাইফ এ। এটিতে ব্যবহার করা হয়েছে 2000mAh এর ব্যাটারি তাই ফোনটির সবচেয়ে ভাল দিক ব্যাটারি চার্জ অনেক ভাল থাকে। নোকিয়ার তথ্য অনুযায়ী ফোনটি একনাগাড়ে ২৩ দিন স্টানবাই অবস্থায় চালু থাকতে পারবে। টকটাইম ২জিতে একনাগাড়ে ২৩.৯ ঘণ্টা এবং থ্রিজিতে ১৫.২ ঘণ্টা। ওয়াইফাই দিয়ে ইন্টারনেট ব্রাউজিং করতে পারবেন ৮.৭ ঘণ্টা এবং মোবাইল নেটওয়ার্ক দিয়ে ৭.২ ঘণ্টা

শেষ কথাঃ

নোকিয়া লুমিয়া ৬২৫ লুমিয়া সিরিজের সবচেয়ে বড় ফোন ( অক্টোবর ২০১৩ অনুযায়ী ) ৪.৭ ইঞ্চির ডিসপ্লে, ৪জি সাপোর্ট, দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি, Full-HD রেকডিং ইত্যাদি আকর্ষনীয় সব সুবিধা বিবেচনায় দারুন একটি ফোন।

অন্যদিকে কম রেজুলেশন এবং লো ক্যামেরা কোয়ালিটি। যদিও আগের হাই-এন্ডফোনগুলির বিভিন্ন সুবিধা একসাথে করে তৈরী করা হয়েছে এই ফোনটি।

যাহোক লুমিয়া ৬২৫ এর সকল স্পেক, আকর্ষনীয় গঠন ও দারুন পাসফামেন্স বিবেচনায় ২২ হাজার ৫০০ টাকায় একটি দারুন ফোন।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ

এই টিউনটিতে আমি শুধু Nokia Lumia 625 এর রিভিউ লিখেছি অর্থাৎ ডিভাইজটিতে ফোকাস করেছি অপারেটিং সিস্টেমে নয়। Windows Phone 8 অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে তেমন আলোচনা করা হয়নি। পরবর্তী টিউনে Windows Phone 8 অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে আরেকটা রিভিউ লিখব এবং নিয়মিত উইনডোজ ফোন এর সুযোগ-সুবিধা, টিপস, ট্রিকস, অসুবিধা ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে নিয়মিত টিউন করার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ।

রিভিউটিতে লুমিয়া ৬২৫ এর রিভিউ দেয়া হয়েছে এর কোন কনফিগারেশ কিংবা স্পেসিফিকেশন দেয়া হয়নি। এখানে ক্লিক করে নোকিয়ার ওয়েবসাইট থেকে বিস্তারিত খুনিটানি স্পেসিফিকেশন জেনে নিতে পারেন।