বাংলাদেশে এসেছে ফ্রি ইন্টারনেট ! সবাই মহাখুশি। হ্যা অবশ্যই এটা দারুন একটা খুশির খবর। দেশে যেখানে ১ জিবি দ্রুতগতির ইন্টারনেট আমাদের কিনতে হয় প্রায় ৩০০ টাকা দিয়ে সেখানে কিনা ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারব কোন খরচ ছাড়াই।

সূচনাঃ

ফেইসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুগারবার্ককে খুব কম মানুষই চেনেন না। ফেইসবুকের ফলে আমাদের বর্তমান জীবনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এসছে দারুন রকমের পরিবর্তন। আপনি যদি এই টিউনটির পাঠক হন তাহলে সেটা আপনারও হাড়ে হাড়ে টের পাওয়ার কথা। ফেইসবুকের মূল লক্ষ্য হল পৃথিবীর সকল মানুষকে একসাথে কানেক্ট করা। এবং ফেইসবুক এই লক্ষ্যে মোটামুটি সফল।

ছবি – Shutter Stock

 

পৃথিবীর বর্তমানে প্রায় সকল ইন্টারনেট ব্যবহারকারী একটি ফেইসবুক প্রফাইল রয়েছে। আর বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তো চিত্রটা আরো অন্নরকম। পুরোনো ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা তো ফেইসবুকে আছেন ই সাথে নতুন যারা ইন্টারনেট নামক বিষয়টির সাথে পরিচিত হচ্ছে তারা সূচনা করছে একটি ফেইসবুক প্রফাইল দিয়ে। ফলে নতুন অনেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে ইন্টারনেটের অপর নাম ফেইসবুক।

ফেইসবুকের ইন্টারনেট.অর্গ অথবা ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধা কি?

ধরা যাক পৃথিবীর মোট জনসংখ্যা ৭০০ কোটি। এর মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ৩০০ কোটি মানুষ। এই ৩০০ কোটি মানুষের মধ্যে ফেইসবুক ব্যবহার করে ১০০ কোটি মানুষ। এরমধ্যে বাকি ২০০ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ফেইসবুক ব্যবহার করে না। এবং ৪০০ কোটি মানুষ ইন্টারনেট ই ব্যবহার করে না। অর্থাৎ তাদের বেশীরভাগই ইন্টারনেট বঞ্চিত বা ইন্টারনেট তাদের নাগালে নেই, অপ্রোয়জনীয় কিংবা ইন্টারনেট চড়া মূল্য দিয়ে তাদের ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না।

ফেইসবুকের মূল লক্ষ্য যেতেহু পৃথিবীর সবাইকে একই সামাজিক যোগাযোগের প্লার্টফর্মে যুক্ত করা সেহেতু মার্ক জুগারবার্ক পরিকল্পনা করেছেন সুবিধাবঞ্চিত এইসব ইন্টারনেট থেকে দূরে থাকা মানুষদেরকে বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা দিতে। আর তারই লক্ষ্যে Internet.org নামক প্রকল্পটির সূচনা। যার মধ্যে পরিচালনা হবে এই পরিকল্পনাটির। এবং তাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে পৃথিবীর বাকি ৪০০ কোটি মানুষকে ইন্টারনেটের আওতায় আনা।

এই প্রকল্পটির টার্গেট যেতেহু সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের জন্য সেহেতু সাধারণভাবেই জনসংখ্যাবহুল ও গরীব দেশগুলির প্রতি টার্গেট করা হচ্ছে। আর এর ফল হিসেবে জাম্বিয়া, কেনিয়া, ঘানা, টানজানিয়া, কলম্বিয়া, ইন্ডিয়া, ফিলিপাইন, ইন্দোনেশিয়া ইত্যাদি দেশগুলিতে সেবাটি ইতিমধ্যে চালু হয়ে গেছে। এবং পর্যায়ক্রমে আমাদের দেশেও গত ১০ মে ফেইসবুকের ইন্টারনেট.অর্গ সুবিধা চালু হয়।

ইন্টারনেট.অর্গটা মূলত কিভাবে কাজ করছে?

যখন internet.org এর ফ্রি ইন্টারনেট কোন দেশে অফার করা হয় তখন মূলত ফেইসবুক এবং টেলিকম অপারেটরের মধ্যে একটি চুক্তি হয়। এই টেলিকম অপারেটর তখন এই সার্ভিসটি কাস্টমারদেরকে দেয় এবং ফেইসবুক ও internet.org টিম দ্বারা হাতে গোনা কয়েকটি ওয়েবসাইট বাদে সব ওয়েবসাইটের একসেস ব্লক করে দেয়া হয়। ফেইসবুক তখন তাদের এই সার্ভিসকে ফ্রি ইন্টারনেট নামক খেতাব দিয়ে ওই এলাকায় ব্যাপকভাবে মার্কেটিং করে ইন্টারনেট ব্যবহাকারীদেরকে আকৃষ্ট করার জন্য। কিন্তু তারা মূলত ফ্রি ইন্টারনেট এর নাম ভাঙ্গিয়ে ব্যবহারীদেরকে দিচ্ছে খুবই Restricted একটি ইন্টারনেট সার্ভিস।

এখন এর ফলে ফেইসবুক তাদের ইচ্ছামত যে সাইটগুলি লিস্টে রাখছে সেগুলিই শুধুমাত্র একটা ব্যবহারকারী ব্রাউজ করতে পারছে। আর ব্লক করে দিচ্ছে আমাদের বাকি সব পছন্দনীয় ভিডিও, অডিও, বিনোদন কিংবা সংবাদপত্রের সাইটগুলিকে। এতে যখন দেশের সাধারণ মানুষ internet.org এর আওয়াতভুক্ত হচ্ছে তখন তারা বিশ্বাস করছে যে আসলে তারা সত্যিকার ইন্টারনেটেই আছে। কিন্তু বাস্তবিক ভাবে তারা শুধুমাত্র ফেইসুবকের ফ্যাক ইন্টারনেট ব্যবহার করছে যেখানে তাদের পছন্দের কিছু সাইটেই সীমাবদ্ধ।

এতে ফেইসবুকের লাভ কি?

কনট্রাল / নিয়ন্ত্রন ! তারা তাদের ফেইসবুক প্লাটফর্ম সবজায়গায় ছড়াচ্ছে এবং তারা চাচ্ছে যাতে আমরা কোনভাবেই তাদের প্লাটফর্ম ছাড়তে না পারি। তাদের এই ইন্টারনেটকে কল্পনা করতে পারেন পুরো ইন্টারনেটের ভিতর ফেইসবুকের একটি লেয়ার হিসেবে, যেটি আমরা ব্যবহার করছি। অবশ্যই, সাধারণভাবে চিন্তা করলে আপনি মনে করবেন আপনি আসলে সত্যিকার উন্মুক্ত ইন্টারনেটই ব্যবহার করছেন। কিন্তু সত্যিকার অর্থে এটি নিয়ন্ত্রিত, মালিকানাধীন এবং আসল ইন্টারনেটের ধারে কাছেও নেই, যেটা আমরা বর্তমানে ব্যবহার করছি।

তো? এখন আপনার বিবেচনায় এই নামেমাত্র ফ্রি ইন্টারনেট কি সঠিক বা ভাল মনে হয়?

ওপেনমিডিয়া অবলম্বনে

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ইন্টারনেট.অর্গ অর্থাৎ ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধাটি কেমনঃ

ইন্টারনেট.অর্গ যেতেহু ফেইসবুক এর একটি প্রকল্প সেতেহু ফেইসবুক তো থাকবেই সাথে থাকছে আরো ২৯ টি ওয়েবসাইট (সূত্রঃ টেকশহর)। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু ওয়েবসাইট হল প্রথম-আলো, বিডিনিউজ২৪, ক্রিকেটইনফো, শিক্ষক.কম, জবসবিডি.কম ইত্যাদি। ফ্রি ইন্টারনেটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ইন্টারনেট চাহিদা অনেকাংশে পূর্ণ হতে পারে। সাধারণভাবে চিন্তা করলে একটা মানুষের কি লাগে? তথ্য! তথ্যের জন্য প্রয়োজনীয় অনেক সরকারী ওয়েবসাইট রয়েছে এই সুবিধার আওতাভুক্ত। এরপর রয়েছে কয়েকটি সংবাদপত্রের ওয়েবসাইট যার মাধ্যমে খবর পড়া যাবে। এখানে আবার কোন সংবাদপত্র কোন দলের তা নিয়ে একটি বিতর্কও থেকে যায়।

প্রথমিকভাবে ইন্টারনেট.অর্গ প্রকল্পটির মাধ্যমে ফ্রি ইন্টারনেট সেবা দিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে রবি। ফলে রবি নেটওয়ার্ক থেকে আপাতত পাওয়া যাবে এই ফ্রি ইন্টারনেট সুবিধা। পরে আরো অন্যান্য অপারেটর যুক্ত হতে পারে।

যাহোক। সুবিধাটি সাধারণভাবে ভাবলে ভালই মনে হচ্ছে। ভাল কি? দারুন বলা যায়। ফ্রি ফ্রি ইন্টারনেট চালাতে পারবে সাধারণ মানুষ। এটা বিশাল ব্যাপার। নিসন্দেহে একটি ভাল উদ্দ্যোগ।

আচ্ছা এবার একটু অন্যভাবে বিষয়টাতে চিন্তা করা যাক, কিভাবে এই ইন্টারনেট.অর্গ প্রকল্পটি একটি মারাত্বক খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের উপর। পোস্টের টাইটেলে “নতুন প্রজন্ম”ও লিখেছি কারণ এখন টিনএজ ছেলেমেয়েরাই বেশিরভাগ ফেইসবুকে আসক্ত এবং তাদের কাছে ইন্টারনেট মানেই ফেইসবুক।

ইন্টারনেট.অর্গ বা ফ্রি ইন্টারনেট কিভাবে খুবই খারাপ প্রভাব ফেলতে পারেঃ

আগেই বলেছি ইন্টারনেটের সাথে অপরিচিত ৪০০ কোটি মানুষকে এই ফ্রি ইন্টারনেটের আওতায় আনার জন্যই মূলত এই প্রকল্প কাজ করছে। এই ৪০০ কোটি মানুষের মধ্যে বেশীরভাগ মানুষই সুবিধাবঞ্চিত ও দরিদ্রতার কারণে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারছে না। এই সুবিধার ফলে তারা ইন্টারনেটের সাথে পরিচিত হবে এবং হাতে গোনা যে সাইটগুলি ফ্রির আওয়ায় আছে, তাদের “ইন্টারনেট” নামক জগতের মধ্যে শুধু সেগুলিই সীমাবদ্ধ থাকবে।

অর্থাৎ নতুন ইন্টারনেট ব্যবহারকারী যারা ইন্টারনেট.অর্গ এর মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত হবে তারা মূল ইন্টারনেট থেকে থাকবে বহুগুন দূরে। তাদের ইন্টারনেট মানেই হবে “ফেইসবুক”। অন্যভাবে বলা যেতে পারে ইন্টারনেটের অপর নাম ফেইসবুক।

এবার চিন্তা করে দেখুনতো এটি কতটা খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে?

১) আপনার ইন্টারনেট জগৎ যদি ফেইসবুকসহ হাতে গোনা কয়েকটি সাইটই হয় তাহলে আপনি অপরিচিত থাকবেন আসল ইন্টারনেট থেকে।

২) ইন্টারনেট.অর্গ এর মধ্যে দেয়া সাইটগুলি যে তথ্য বা সেবা আপনাকে দিবে শুধুমাত্র তার মধ্যেই আপনাকে সীমাবদ্ধ থাকতে হবে।

৩) উদাহরণ হিসেবে প্রথম-আলো বা বিডিনিউজ২৪ ওয়েবসাইটে আপনি ফ্রিতে সংবাদ সংগ্রহ করতে পারছেন ফলে প্রথম-আলো যদি ভূয়া বা হলুদ সাংবাদিকতা করে তাহলেও আপনি সেটাকেই সত্যি হিসেবে মেনে নিবেন।

৪) নিউজ কিংবা শিক্ষামূলক অন্যান্য সাইট তখন আপনার কাছে পেইড মনে হবে অর্থাৎ অন্যান্য সাইটগুলি ব্যবহার করতে যেতেহু আপনাকে অর্থ ব্যয় করতে হবে সেহেতু আপনি চাইবেন না এই সাইটগুলি ব্যবহার করতে।

৫) এর ফলে ফ্রিতে থাকা সাইটগুলি রাজত্ব করতে পারবে এবং অন্যান্য সাইটগুলি কেউ ব্যবহার করতে চাইবে না।

৬) ইন্টারনেট.অর্গ যেতেহু ফেইসবুকের একটি প্রকল্প এবং ফ্রিতে ব্রাউজ করার সাইটগুলির সবগুলি ইন্টারনেট.অর্গ এর প্রক্সি দিয়ে চলে সেহেতু আপনার প্রত্যেকটা কর্মকান্ড বা ব্যক্তিগত তথ্য তারা তাইলেই সংগ্রহ করতে পারে।

৭) সরকার যেহেতু ফেইসবুক কর্তৃপক্ষের সাথে চুক্তি করে যৌথভাবে এই প্রকল্পটি দেশে চালাচ্ছে সেহেতু সরকার চাইলেই আপনার কর্মকান্ডের নজরদারী এবং যেকোন তথ্য সংগ্রহ করতে পারে।

৮) অর্থাৎ এই ফ্রি ইন্টারনেটে এ আপনার প্রাইভেসী থাকবেনা বললেই চলে।

এই পয়েন্টগুলি আমার কাছে সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে। এর বাইরেও থাকতে পারে অনেক ভয়ংকর সব পরিকল্পনা।

যেমনঃ

১) আপনি যদি স্মার্টফোন ব্যবহারকারী হন তাহলে এই ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় আপনার ফোনে ব্যালেন্স থাকলে তা কখন কেটে নিবে টেরই পাবেন না।

২) ফ্রি ইন্টারনেট ব্যবহারকালীন সময় আপনি অন্য ওয়েবসাইটে ঢুকতে চাইলে আপনাকে অর্থ ব্যয় করে বিভিন্ন রকমের ১ থেকে ১০ মেগাবাইট এর প্যাক কিনতে বলবে। আর এর ফলেই মূলত আপনি অন্যান্য ওয়েবসাইট ভিজিট করতে চাইবেন না।

৩) ফ্রি এই ইন্টারনেটে মূলত আপনি সাধারণভাবে সরাসরি এড্রেসবারে লিখে (ফেইসবুক বাদে) কোন সাইট ভিজিট করতে পারবেন না। অর্থাৎ উদাহরণ হিসেবে আপনি যদি এড্রেস বারে www.prothom-alo.com লিখেন তাহলে খুলবে না। বরং আপনাকে Internet.org সাইটে গিয়ে প্রথম-আলোর লিংকে ক্লিক করতে হবে। এড্রেসটি মূলত তখন এরকম হয় ” www-prothom-alo-com.0.internet.org। এর ফলে কিন্তু আপনাকে internet.org এর প্রক্সি ব্যবহার করতে হচ্ছে। আর তাতে তারা সহজেই আপনাকে আপনার এক্টিভিটি তদারকি করতে পারবে।

 

ইন্টারনেট.অর্গ সমর্থিত ফ্রি ইন্টারনেট মূলত ফ্যাক বা ব্লকড ইন্টারনেট, আসল ইন্টারনেটের ধারেকাছেও এটি নেই!

উপরের পয়েন্টগুলি একটু ভাল ভাবে চিন্তা করলেই বুঝবেন এই কথার ভিত্তি কতটুকু। ফ্রি ইন্টারনেটে ব্যানারে আপনি মূলত ব্রাউজ করছেন ফ্যাক, হাইলী রেসট্রিকটেড এবং ব্লকড ইন্টারনেট।

প্রথমবার যারা ইন্টারনেটের সাথে পরিচিত হচ্ছে তাদের কাছে ফেইসবুক হতে পারে ইন্টারনেটের গেটকিপার বা দারওয়ান।

বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৩০০ কোটি। একটা কথা চিন্তা করুন, যখন পরবর্তী ৩০০ কোটি মানুষ ইন্টারনেটের সাথে পরিচিত হবে তখন বর্তমান ইন্টারনেটের মত তারা একটি উন্মুক্ত ইন্টারনেট পাবেন না। তারা পাবেন সেকেন্ড ক্লাস ইন্টারনেট এক্সপেরিয়েন্স। যেটা থাকবে ফেইসবুকের মত বড় টেক কোম্পানী ও টেলিকম কোম্পানীগুলির নিয়ন্ত্রনাধীন।

বিরত থাকার চেষ্টা করুন যেকোন ফ্রি নামক সেবা থেকেঃ

ফ্রি শব্দটাই একটা আকর্ষনীয় শব্দ। ফলে কোথাও ফ্রি লেখা দেখলে আমাদের স্বাভাবিক ভাবেই সেটাতে আকর্ষন চলে আসে। কিন্তু একবার ভেবে দেখুন এই ফ্রি টা কি আসলেই ফ্রি নাকি অন্যকিছু। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ফ্রি এর পিছনে লুকিয়ে থাকে মার্কেটিং নামক একটি বস্তু। যেটা আপনাকে এমন সুক্ষভাবে ইউজ করে মুনাফা অর্জন করছে যে তা আপনি টেরই পাবেন না। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ হল আপনি আপনার প্রাইভেসী নিয়ে চিন্তিত থাকলে ফ্রি যেকোন ব্যবহারে একাধিকবার ভাবুন। নাহলে পরে আপনাকে পস্তাতে হতে পারে।

আমরা এরকম ফ্রি চাইনা আমরা চাই Net Neutrality অর্থাৎ নিরপক্ষ ইন্টারনেটঃ

ফ্রি হলে সব হবে নাহলে একটাও না। Net Neutrality বা নিরপক্ষ ইন্টারনেট এর কথা হয়ত অনেকজনের স্ট্যাটাসে বা বিভিন্ন জায়গায় দেখতে পারেন। এটা অনেকেই নাও বুঝে থাকতে পারেন। তাই Net Neutrality নিয়েও একটু ধারণা পরিস্কার করতে চাই।

কি এই Net Neutrality?

নেট নিরপক্ষতা হচ্ছে যদি আপনার ইন্টারনেট কানেকশন থাকে তাহলে আপনি যেকোন সাইট ব্রাউজ করতে পারবেন কোনরকমের রেসট্রিকশন ছাড়া।

১) সব ধরণের কনটেন্ট সমান এবং সমভাবে সকল প্রকার সাইট ব্রাউজ করা যাবে। সেটা প্রধানমন্ত্রীর ওয়েবসাইট হোক আর আপনার ওয়েবসাইট ই হোক।

২) প্রধানমন্ত্রীর সাইটে বেশী স্পীডে ব্রাউজ করা যাবে আর আমার ওয়েবসাইট কম স্পীডে লোড হবে। এটা হবে না। সব ওয়েবসাইট একই স্পীডে লোড হবে। কোনটার কমবেশী করা যাবে না।

ধরা যাক আপনার গ্রামীনফোন ইন্টারনেট দিয়ে বিক্রয়.কম খুব তাড়াতাড়ি লোড হয় আর এখানেই.কম এত কম স্পীডে লোড হয় যে বিরক্ত হয়ে বিক্রয়.কমই আপনি বাধ্য হয়ে ভিজিট করবেন।

আর এখন এরকমই কিছু অনিয়ম হচ্ছে যেমন, নেট প্রভাইডারদের নানারকম ইন্টারনেট প্যাক, সোস্যাল প্যাক, ফেইসবুক প্যাক, হোয়াটসআ্যাপ প্যাক ইত্যাদি ইত্যাদি। সোস্যাল প্যাক নিলে আপনি ব্যবহার করতে পারছেন ফেইসবুক, হোয়াটসআ্যাপ, ম্যাসেঞ্জার ইত্যাদি। কিন্তু একসেস করতে পারছেন না গুগল+, টুইটার, ভাইবার ইত্যাদি। আর একসেস হলেও সেগুলির জন্য আলাদাভাবে চার্জ করা হচ্ছে।

Internet.org এর ফ্রি ইন্টারনেট নামক প্রতারণা থেকে বিরত থাকুন এবং অন্যকেও উদ্বুদ্ধ করুনঃ

অনেকেই এই বিষয়টি সমন্ধে অজ্ঞাত। ফেইসুবকে অনেকজনের পোস্ট দেখবেন যারা এই ফ্রি ইন্টারনেটকে সমর্থন করেনা আবার কেউ কেউ আছে সমর্থন করে। যারা সমর্থন করে আমি তাদেরকে কখনোই দোষ দিব না কারণ আমি জানি তারা যদি ফেইসবুকের এই প্রতারণাটি সমন্ধে জানে তাহলে তারাও প্রতিবাদ করবে।

0.facebook.com এর কল্যাণে আমরা মাসআল্লাহ ফেইসবুকে add me আর Like me এর অনেকগুলি ব্যবহারকারী পাচ্ছি যারা মূলত নাবুঝেই তাদের মূল্যবান সময়গুলি নষ্ট করছে এবং তার সাথে সাথে নষ্ট করছে কমিউনিটির সুষ্ঠ একটি অংশকে। আর এসব add me, like me ব্যবহারীদের বেশীরভাগ স্কুল পড়ুয়া। যারা আমাদের ভবিষৎ প্রজন্ম। তাই আসুন এই লেখাটি সেয়ার করে সবাইকে সতেচন করি।

আরেকটি বিষয় ক্লিয়ার করতে চাই। তাহল আমি এখনে বোঝাতে চেয়েছি internet.org প্রকল্পের মাধ্যমে নতুন যারা ইন্টারনেট ব্যবহারী হিসেবে আসবে তারা এটার ব্যাড ইফেক্টের মধ্যে পড়বে। আমরা যারা পুরোনো ইন্টারনেট ব্যবহারকারী এবং ফ্রি নেট দিয়ে ইন্টারনেটকে চিনিনাই তাদের কোন সমস্যা হবেনা। পুরোনো ব্যবহারকারীরা আপাতদৃষ্টিতে প্রকল্পটি দারুন মনে করবেন। এবং এটাই ঠিক। কিন্তু ব্যাড ইফেক্ট পড়বে যারা internet.org এর মাধ্যমে ইন্টারনেটের সাথে পরিচিতি হবে। তারা সহজে ফ্রি জিনিসটি থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে না। উদাহরণ হিসেবে, তারা তখন প্রথম-আলোই পড়বে। সেটা ভূয়া নিউজ দিলেও। সেটাই তার কাছে সত্য মনে হবে। টাকা দিয়ে অন্য নিউজপেপার কেন পড়তে যাবে?

সবশেষে আমার বিশাল এই লেখাটি মনেযোগ ও ধৈর্য দিয়ে পড়ার জন্য অবশ্যই ধন্যবাদ। আশা করছি আমি মূলত যা বোঝাতে চেয়েছি তা ভালভাবে বোঝাতে সক্ষম হয়েছি। আমি অনেক আর্টিকেল পড়ে ও নিজের মতামত দিয়ে লেখাটি লিখেছি। তাই স্বাভাবিকভাবে ভূল বা মতপার্থক্য থাকতেই পারে। লেখায় কোন ভূল থাকলে বা ভাল না লাগলে মন্তব্য করে জানাতে পারেন।

ভাল থাকুন, সবসময় 🙂

সূত্র ও রেফারেন্সঃ

1. https://openmedia.ca/blog/how-facebook-blocking-3-billion-soon-be-internet-users-real-web

2. http://gizmodo.com/facebook-opens-up-internet-org-platform-tramples-all-o-1701996549?utm_campaign=socialflow_gizmodo_facebook&utm_source=gizmodo_facebook&utm_medium=socialflow

3. http://timesofindia.indiatimes.com/tech/tech-news/Net-neutrality-Facebook-trying-to-make-users-think-Internet-org-is-free-internet/articleshow/47202438.cms

4. http://en.wikipedia.org/wiki/Net_neutrality

5. http://www.internetlivestats.com/internet-users/

6. http://techshohor.com/special/36806

7. http://www.wired.com/2015/05/opinion-internet-org-facebooknet/